যে ৯ ধরণের মানুষ করোনায় আ’ক্রান্ত হয়ে বেশি মা’রা যাচ্ছে

আ’ক্রান্ত হয়ে বেশি মা’রা যাচ্ছে-প্র’তিরো’ধমূলক প্রক্রিয়ার মধ্যে না থাকলে যেকোনো মানুষ করো’না ভা’ইরাসে সংক্র’মিত হতে পারেন। আশ্বস্তের খবর হচ্ছে, ভা’ইরাসটিতে সংক্র’মিত অধিকাংশ মানুষই সু’স্থ হয়ে বাড়ি ফি’রছেন। কিন্তু কিছু মানুষের কো’ভিড-১৯ থেকে তীব্র অসু’স্থতা ও মৃ’ত্যুর বাড়তি ঝুঁ’কি রয়েছে। এখানে করো’না ভা’ইরাসের সংক্র’মণ থেকে যাদের মৃ’ত্যুবরণ করার উচ্চ ঝুঁ’কি রয়েছে তাদের স’স্পর্কে আলোচনা করা হলো।

১. বয়স্ক মানুষ

চীনের রো’গ প্র’তিরো’ধ কে’ন্দ্রের প্র’তিবেদন অনুসারে, করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ ে ৮০ বছর ও তদোর্ধ্ব বয়সের মানুষদের মধ্যে মৃ’ত্যুহার সর্বো’চ্চ ছিল। বয়স ৬৫ বছর থেকে হিসাব করলে এ মৃ’ত্যহার আরো বেশি। করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ ে বেশি হারে বয়স্ক মানুষ মা’রা যাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, বৃ’দ্ধ বয়সে অভ্যন্তরীণ অর্গানগুলো আগের মতো ভালোভাবে কাজ ক’রতে পারে না।

২. হৃদরো’গী

চীনের করো’না ভা’ইরাস সংক্রা’ন্ত প্র’তিবেদন থেকে জা’না গেছে, হার্ট ও র’ক্তনালির রো’গ রয়েছে এমন মানুষদের মধ্যেও করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ ে মৃ’ত্যুহার বেশি ছিল। হৃদরো’গীদের মধ্যে কো’ভিড-১৯ এ মৃ’ত্যুহার ছিল ১০.৫ শতাংশ। দীর্ঘস্থা’য়ী উচ্চ র’ক্তচা’পের মানুষদের মধ্যে মৃ’ত্যুহার ছিল প্রায় ৬ শতাংশ।

৩. ফু’সফুস রো’গী

যারা দীর্ঘস্থা’য়ী শ্বা’সতন্ত্রীয় রো’গে ভু’গছেন তাদের করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ জনিত জটিলতার ঝুঁ’কি বেশি। করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ ে যাদের মৃ’ত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে ৬.৩ শতাংশের শ্বা’সতন্ত্রীয় স’মস্যা ছিল। ভা’ইরাসটি শ্বা’সক্রিয়ার স’ঙ্গে সম্পৃক্ত স্ট্রাকচার ও টিস্যুতে আ’ক্রমণ করে থাকে। জটিলতার মধ্যে শুধু তীব্র নিউমোনিয়া নয়, অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ডিসট্রেস সিন্ড্রোমও (এআরডিএস) হতে পারে। এআরডিএসে ফু’সফুসের টিস্যু পর্যাপ্ত অক্সিজেন পায় না।

৪. ডায়াবেটিস রো’গী

ডায়াবেটিস ও অন্যান্য এন্ডোক্রাইন ডিসঅর্ডার রয়েছে এমন মানুষদের করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ ে তীব্র অসু’স্থতা ও মৃ’ত্যুর বাড়তি ঝুঁ’কি রয়েছে। চীনে ডায়াবেটিস রো’গীদের কো’ভিড-১৯ এ আক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যুহার ছিল ৭.৩ শতাংশ। টাইপ ১ ডায়াবেটিস ও টাইপ ২ ডায়াবেটিস উভ’য় রো’গীদের করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ জনিত জটিলতার ঝুঁ’কি একই।

৫. ইমিউন সিস্টেম দু’র্বলকারী ওষুধ ব্যবহারকারী

যারা ইমিউন সিস্টেমকে দু’র্বল ক’রতে ইমিউন সাপ্রেসিং ড্রাগস ব্যবহার করেন তাদের পক্ষে কো’ভিড-১৯ ও এর জটিলতার বি’রুদ্ধে লড়াই করা ক’ঠিন হয়ে প’ড়ে। শ’রীর যেন প্রতিস্থাপনকৃত অর্গানকে রিজেক্ট ক’রতে না পারে তার জন্য কিছু ইমিউন সাপ্রেসিং ড্রাগস ব্যবহার করা হয়, যেমন- প্রতিস্থাপনকৃত হার্ট, কিডনি ও লিভার এর ক্ষেত্রে।

৬. লিভার ও কিডনি রো’গী

অন্যান্য ক্রনিক রো’গের রো’গীদেরও করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ জনিত জটিলতার উচ্চ ঝুঁ’কি রয়েছে, যেমন- ক্রনিক কিডনি রো’গ ও ক্রনিক লিভার রো’গ। এসব রো’গের কারণে সংক্র’মণ ের বি’রুদ্ধে লড়াই ক’রতে শ’রীরের যে সামর্থ্য রয়েছে তা কমে যায়। এছাড়া অন্যান্য দীর্ঘস্থা’য়ী স্বা’স্থ্য স’মস্যাতেও ইমিউন সিস্টেম ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়।

৭. র’ক্ত সংক্রা’ন্ত রো’গ

যাদের সিকেল সেল অ্যানিমিয়ার মতো ব্লাড ডিসঅর্ডার রয়েছে এবং যারা র’ক্ত পাতলাকারী ওষুধ ব্যবহার করেন তাদেরও কো’ভিড-১৯ এর জটিলতায় ভোগার উচ্চ ঝুঁ’কি রয়েছে।

৮. নে’শাগ্রস্ত মানুষ

যারা বিভিন্ন রকম নে’শায় আসক্ত এবং নিয়মিত ড্রাগসের অপব্যবহার করেন তাদেরও করো’না ভা’ইরাস সংক্র’মণ জনিত জটিলতার বাড়তি ঝুঁ’কি রয়েছে।

৯. ধূমপায়ী

যারা ধূমপান করেন অথবা মা’রিজুয়ানা সেবন করেন অথবা ভেপ ব্যবহার করেন তাদের ফু’সফুস ইতোমধ্যে ঝুঁ’কিতে রয়েছে। অন্যদিকে ওপিওইড ও মিথঅ্যাম্ফিটামিন শ্বা’সতন্ত্রের ওপর চা’প ফে’লে।deho.tv

Check Also

ভ্যাকসিন ছাড়াই নির্মূল হবে করোনা, সুখবর দিলেন গবেষক

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন এখনো আবিষ্কার হয়নি। তবে তিনটি প্রতিষেধক বাজারে আসার অপেক্ষায় রয়েছে, চলছে চূড়ান্ত পর্বের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *