পদ্মা সেতু ও বাংলাদেশ-পদ্মা ব্রিজের সকল তথ্যাবলি

বাংলাদেশ দক্ষিণ-এশিয়ার ছোট উন্নয়নশীল দেশ। আয়তনের তুলনাই অনেক বেশি জনসংখ্যা । বর্তমান সরকার স্বাস্থ্য, অবকাঠামো , কৃষি, যোগাযোগব্যবস্থা সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে এমন কিছু পদক্ষেপ নিছে যা দেশকে বদলে দিতে সহায়তা করবে।

পদ্মা বহুমুখী সেতু বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যাবস্থাকে আরও একধাপ  উপরে নিয়ে গেছে । পৃথিবীর আধুনিক প্রযুক্তি ও প্রকৌশলী দ্বারা এটি নির্মাণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে এই প্রকল্প বড় একটা চ্যালেঞ্জিং বিষয়। দুই স্তর বিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট দ্বারা চার লেনের সড়ক ,উপরে যানবাহন আর নিচে ট্রেন চলবে।

পদ্মা সেতু ও বাংলাদেশ

পদ্মা বহুমুখী সেতুর বিবরণ

নদী: পাদ্মা নদীর উপর।

নাম: পাদ্মা বহুমুখী সেতু।

ব্যায়: প্রায় ৩০০০ কোটি টাকা।

চুক্তি বদ্ধ কোম্পানি: চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেড এর আওতাধীন চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি।

ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন: ৪ জুলাই ২০০১।

নির্মাণ কাজ শুরুঃ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪

বহন সমুহ: যানবাহন ও ট্রেন (ডাবল গেজ)।

মিলিত স্থান: শরিয়তপুরের জাজিরা এবং মুন্সীগঞ্জের মাওয়া

মোট দৈর্ঘ্য: ৬.১৫ কিলোমিটার

প্রস্থ: ১৮.২০ মিটার।

পিলার: ৪২ টি( নদীতে ৪০ টি)

সেতুর উচ্চতা: ১৩.৬ মিটার।

পানির স্তর থেকে উচ্চতা: ৬০ ফুট

ভায়াডাক্ট: দুই প্রান্তে মোট ৩.১৮ কিলোমিটার

ভায়াডাক্ট পিলার: ৮১ টি

প্রতি পিলারের জন্য পাইলিং: ৬ টি

মোট পাইলিং: ২৬৪ টি

পাইলিং গভিরতা: ৩৮৩ ফুট

সংযোগ সড়ক: দুই প্রান্তে ১৪ কিলোমিটার

নদী শাসন: দুই পাড়ে ১২ কিলোমিটার

জনবল নিয়োগ: প্রায় ৮০০০ হাজার

নির্মাণ কাজ শেষ হবে: ২০২১ সালের ডিসেম্বর

পাদ্মা সেতুতে যা যা থাকবে: গ্যাস, বিদ্যুৎ,   অপটিক্যাল ফাইবার সংযোগ পরিবহন সুবিধা,চার লেন সড়ক।

Check Also

সাপে কামড়ানোর লক্ষন ও  সাপ কামড়ালে করনীয়

সাপ কে ভয় পাই না এমন মানুষ খুব কম আছে। পৃথিবীতে পতিনিয়ত অনেক মানুষ মারা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *