খাদ্য ও ভিটামিন

Discuss Today

খাদ্য ও ভিটামিন

প্রশ্ন। খাদ্য কাকে বলে?

উত্তর : যা খেলে শরীরে শক্তি হয়, শরীরের ক্ষয়পূরণ করে এবং শরীরের বৃদ্ধি ঘটে তাকে খাদ্য বলে।

প্রশ্ন। সুষম খাদ্যের উপাদান কয়টি?

উত্তর ঃ ৬টি। যথা- শর্করা, আমিষ, স্নেহ, ভিটামিন, খনিজ লবণ এবং পানি।

প্রশ্ন। সুষম খাদ্যে শর্করা, আমিষ ও স্নেহজাতীয় খাবারের অনুপাত কত?

উত্তর : ৪:১:১।

প্রশ্ন। কোন খাদ্যকে আদর্শ খাদ্য বলা হয়?

উত্তর : দুধ।

প্রশ্ন। কোন খাদ্য উপাদান থেকে শক্তি পাওয়া যায়?

উত্তর : শর্করা, আমিষ ও স্নেহ।

প্রশ্ন। একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির দৈনিক গড়ে কত ক্যালরি শক্তির প্রয়োজন?

উত্তর : ২২০০ ক্যালরি।

প্রশ্ন। আমাদের দেশে একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির দৈনিক গড়ে কত ক্যালরি শক্তির প্রয়োজন?

উত্তর : ২৫০০ ক্যালরি।

প্রশ্ন। অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাদ্য উদ্ভিদদেহে কী হিসেবে জমা থাকে?

উত্তর : স্টার্চ হিসেবে।

প্রশ্ন। অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাদ্য প্রাণিদেহে কী হিসেবে জমা থাকে?

উত্তর : গ্লাইকোজেন হিসেবে।

প্রশ্ন। মানবদেহে গ্লাইকোজেন কোথায় জমা থাকে?

উত্তরঃ যকৃতে অর্থাৎ লিভারে।

প্রশ্ন। দুধের শ্বেতসার অংশকে কী বলে ।

উত্তর : ল্যাক্টোজ।

প্রশ্ন। দুধের প্রোটিনের নাম কি?

উত্তর : কেসিন।

প্রশ্ন। অ্যামাইনো এসিড কী?

উত্তর ঃ প্রোটিনের মূল গাঠনিক একক।

প্রশ্ন। দেহে আমিষ বা প্রেটিনের প্রধান কাজ কী?

উত্তরঃ দেহের বৃদ্ধি সাধন ও ক্ষয়পূরণ করা এবং কোষ গঠনে সহায়তা করা।

প্রশ্ন। দেহ গঠনে কোন উপাদানের প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি?

উত্তর : আমিষ বা প্রোটিন জাতীয় খাবার।

প্রশ্ন। জীব কোষের কোন স্থানে প্রোটিন বা আমিষ সংশ্লেষণ হয়?

উত্তরঃ রাইবোজোম।

প্রশ্ন। Natural Protein-এর কোড নাম কী?

উত্তর : Protein P-49।

প্রশ্ন। আমিষ জাতীয় খাবারের অভাবে কী রোগ হয়?

উত্তর : কোয়াশিয়রকর ও মেরাসমাস।

প্রশ্ন। কোলেস্টেরল কী?

উত্তর : এক ধরনের অস্পৃক্ত অ্যালকোহল ।

প্রশ্ন। কোলেস্টেরলের উৎস কী?

উত্তর ঃ ডিমের কুসুম, কলিজা, মগজ, গরুর মাংস, খাসির মাংস ইত্যাদি।

প্রশ্ন। মানব দেহে শতকরা কতভাগ খনিজ লবণ থাকে?

উত্তর : ৪%।

প্রশ্ন। কোন শাকে লৌহের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি?

উত্তরঃ কচু শাক।

প্রশ্ন। মানবদেহে লৌহের কাজ কী?

উত্তরঃ হিমোগ্লোবিনের হিম অংশ তৈরিতে লৌহ অপরিহার্য।

প্রশ্ন। লৌহের অভাবে কী রোগ হয়?

উত্তর : রক্তশূন্যতা।

প্রশ্ন। হাড় ও দাঁত গঠনে কোন কোন মৌল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে?

উত্তর: ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস

প্রশ্ন। মানুষের শরীরের কোন অঙ্গে বেশির ভাগ ফসফেট রয়েছে?

উত্তরঃ হাড়ে।

প্রশ্ন। কোন মৌল দাঁতের ক্ষয়রোধ করে?

উত্তর : ফুরাইড ।

প্রশ্ন। কোন খাবারে সবচেয়ে বেশি পটাসিয়াম পাওয়া যায়?

উত্তর : ডাব।

প্রশ্ন। কলায় কোন উপাদান বেশি থাকে?

উত্তর : লৌহ, পটাসিয়াম ।

প্রশ্ন : মানবদেহে অ্যান্টিবডির কাজ কী?

উত্তর: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা।

প্রশ্ন: সর্বাধিক স্নেহ জাতীয় খাদ্য কোনটি?

উত্তর: দুধ।

প্রশ্ন: মায়ের দুধে কোন খাদ্য উপাদান নেই?

উত্তর: লৌহ।

প্রশ্ন। পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিনগুলো কী কী?

উত্তর : Vit-B, Vit-C

প্রশ্ন। Vit-C এর অন্য নাম কী?

উত্তর : অ্যাসকরবিক এসিড।

প্রশ্ন। আমাদের দেশে প্রাপ্ত সবচেয়ে বেশি Vit-C সমৃদ্ধ ফলের নাম কী?

উত্তর : পেয়ারা।

প্রশ্ন। ডিমে কোন ভিটামিন নেই?

উত্তরঃ Vit-C

প্রশ্ন। Vit-C এর অভাবে কি রোগ হয়?

উত্তর : স্কার্ভি।

প্রশ্ন। কোন খাদ্যে Vit-A সবচেয়ে বেশি?

উত্তর : গাজর।

প্রশ্ন। কোন খাদ্যে Vit-C সবচেয়ে বেশি?

উত্তর : পেয়ারা।

প্রশ্ন। কোনটিতে আমিষের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি?

উত্তর : শুঁটকী মাছ।

প্রশ্ন। কোন আলোক রশ্মি Vit-D তৈরিতে সাহায্য করে?

উত্তর : আন্ট্রাভায়োলেট রশ্মি বা অতিবেগুনী রশ্মি।

প্রশ্ন। চা পাতায় কোন ভিটামিন থাকে?

উত্তর : ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স।

প্রশ্ন। হাড় ও দাঁত তৈরির জন্য কোন ভিটামিন প্রয়োজন?

উত্তর : ভিটামিন-ডি

প্রশ্ন। কঁচুশাকে কোন উপাদান সবচেয়ে বেশি থাকে?

উত্তর : লৌহ।

## টেকনিকে মনে রাখুন ভিটামিনের নামঃ-

পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিন-বি এবং ভিটামিন-সি

পানিতে অদ্রবণীয় ভিটামিন– ADEK (ভিটামিন-এ, ডি, ই, কে)

তেল/স্নেহ পদার্থে দ্রবণীয় ভিটামিন

ADEK (ভিটামিন এ, ডি,ই,কে)

যকৃতে জমা থাকে ভিটামিন– ADEK (ভিটামিন-এ, ডি, ই, কে) ডিম ও দুধে ভিটামিন ‘সি’ থাকে না।

বৃষ্টির পানি, চা, কফিতে ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স‘ থাকে। সবসময় বৃষ্টির পানি পাওয়া, চা-কফি বানানো জটিল বা কমপ্লেক্স বিষয় নয় কি?]

মাছের তেল, ডিমের কুসুম, মাখনে Vitamin D থাকে।

সূর্যের আলো Vitamin D উৎপাদনে সহায়তা করে।

বিভিন্ন ভিটামিনের নাম ও তাদের অভাবে কী কী রোগ হয়ঃ-

ভিটামিন A: ভিটামিন A এর অভাবে রাতকানা হয়, দেহের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়, ত্বক খসখসে হয়, স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি হয়।

ভিটামিন B1: ভিটামিন B এর অভাবে বেরিবেরি রোগ হয়, হাত পা ফুলে যায়, ক্ষুধা মন্দা, স্নায়ু দুর্বল, দেহের সার্বিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

ভিটামিন B2: ভিটামিন B, এর অভাবে মুখে, জিহ্বায় ও ঠোঁটের কোণে ঘা হয়। চুল উঠতে থাকে।

ভিটামিন B12: ভিটামিন B12 এর অভাবে রক্তস্বল্পতা হয়, বৃদ্ধি ব্যাহত হয় ও আন্ত্রিক শোষণে ব্যাঘাত ঘটে।

ভিটামিন C: ভিটামিন C এর অভাবে দাঁতের গোঁড়া ফুলে উঠে, দাঁত থেকে রক্ত পড়ে বা দাঁত পুঁজ জমে, সহজে সর্দি-কাশি হয়। এবং এর অভাবে স্কার্ভি রোগ হয়।

ভিটামিন D: ভিটামিন D এর অভাবে শিশুদের রিকেট রোগ হয়। এই ভিটামিনের অভাবে অস্থি ও দাঁতের বিকৃতি ঘটে ।

ভিটামিন E: ভিটামিন E এর অভাবে বন্ধ্যাত্ব ও জনন অঙ্গের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

ভিটামিন K : ভিটামিন K এর অভাবে রক্ত জমাট বাঁধে না। ফলে কাটা স্থান বা ক্ষত থেকে ক্রমাগত রক্তক্ষরণ হতে থাকে।

নোট মোস্তাফিজার মোস্তাক

Check Also

বিভিন্ন প্রকার কালচার (চাষ)

বিভিন্ন প্রকার কালচার (চাষ)  পরীক্ষায় আসার মতো গুরুত্বপূর্ণ গুলো বাছাই করে Important culture গুলো দেয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *